পায়রা সেতু উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

পটুয়াখালী-বরিশাল মহাসড়কে নির্মিত পায়রা সেতু উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়াল প্লাটফর্মে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কর্ণফুলী সেতুর আদলে নির্মিত দৃষ্টিনন্দন এই সেতুটি উদ্বোধন করেন তিনি।

দ্বিতীয় বারের মতো দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করে ২০১৩ সালের মার্চে বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে পায়রা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন শেখ হাসিনা।

এরপর নানান জটিলতা কাটিয়ে আট বছর পর বরিশাল বিভাগের প্রথম ১ হাজার ৪৭০ মিটার দৈর্ঘ্য এবং ১৯ দশমিক ৭৬ মিটার প্রস্থের চারলেনের দৃষ্টিনন্দন ও আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর সেতুটির নির্মাণকাজ শেষ হয়। যা প্রথমবারের মতো ‘ব্রিজ হেলথ মনিটরিং সিস্টেম’ সংযোজন করা হয়েছে। ফলে বিভিন্ন দুর্যোগ বা ওভারলোডেড গাড়ি চলাচলের ফলে ব্রিজের যাতে কোনো ধরনের ক্ষতি না হয়, তার পূর্বাভাস পাওয়া যাবে।

রবিবার সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি বরিশাল-পটুয়াখালী মহাসড়কে নির্মিত পায়রা সেতু যান চলাচলের জন্য উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই সেতু নির্মাণের ফলে নিরবচ্ছিন্ন সড়ক ব্যবস্থায় সল্প সময়ে নিরাপদে পৌঁছানো যাবে সাগরকন্যা কুয়াকাটা পর্যন্ত বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ২১ বছর এদেশের মানুষ বঞ্চিত ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশের সকল উন্নয়ন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই। যোগাযোগের ব্যবস্থা উন্নত হলে সেই এলাকার আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নতি হবে বলেও মনে করেন শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা বলেন, বরিশাল-পটুয়াখালীর একটা সংযোগ সৃষ্টি করবে এই পায়রা সেতু। কারণ পায়রা নদীর ওপর সেতু। নদীর নামে সেতুর নামটা হলে নদীটারও একটা পরিচয় পাওয়া যাবে। এজন্য আমি নামটা পছন্দ করেছি। আর পায়রা তো শান্তির প্রতীক, কাজেই এ অঞ্চলে এই সেতু হবার পর মানুষের যে আর্থিক উন্নতিটা হবে, তার ফলে মানুষের মনে একটা শান্তি আসবে, মানুষ সুন্দরভাব বাঁচতে পারবে।

বাংলাদেশের বিজয়কে মেনে নিতে পারেনি একটি গোষ্ঠী। যার ফলে দেশ গড়ার দিকে নজর না দিয়ে ক্ষমতাকে ভোগ করাই ছিল তাদের কাজ বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। দেশকে অস্থিতিশীল যাতে না করতে পারে সেজন্য সকলকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান তিনি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের ভাব মূর্তি নষ্ট করতেই ইচ্ছেকৃতভাবে সাম্প্রতিক হামলার ঘটনা ঘটানো হচ্ছে। দেশের উন্নয়নে বাধাগ্রস্ত করতে সক্রিয় একটি গোষ্ঠী। দেশের উন্নয়ন তাদের চোখে পরে না।

সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার এ উন্নয়নে বরিশাল-পটুয়াখালীসহ দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ উপকৃত হবে। পায়রা সেতুতে বদলে যাবে বরিশাল বিভাগের চিত্র। সেতুটিতে যান চলাচলের মধ্য দিয়ে এখানকার অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি, ব্যবসার প্রসার, পর্যটন শিল্পের বিকাশ এবং সর্বোপরি আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ঘটবে।

SA BANGLA NEWS

সম্পদক – সুমন আখন্দ শুভ

রিপোর্ট – সালমান শুভ